ঢাকা ০৩:৩৬ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪, ৪ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ




বানারীপাড়ায় শীতকালীন সবজি চাষে সফল  নারায়ণচন্দ্র মন্ডল

নাহিদ সরদার ,বানারীপাড়া প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত : ০৭:৫০:০৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২২ ৮৯০ বার পঠিত
কালের ধারা ২৪, অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি
বিজ্ঞাপন
print news

নাহিদ সরদার, বানারীপাড়া প্রতিনিধি: বরিশালের বানারীপাড়া উপজেলার বিশারকান্দি ইউনিয়ন ৮নং ওয়ার্ডের ত্রিমুখী কদমবাড়ী সবজি চাষে সফল ভাবে সাফল্য লাভ করেছেন নারায়ণ চন্দ্র মন্ডল। তিনি এক একর জমিতে সবজি চাষ করেন।শীত কালীন সবজি চাষের মধ্যে রয়েছে শালগম, ফুলকপি ,বাঁধাকপি, মিষ্টি কুমড়া, গোল মরিচ, কাঁচা মরিচ, মিষ্টি আলু,সিম, টমেটো ,মূলা, পালং শাক,কুমাড় শাক,লাউ শাকসহ আরো অনেক শীত কালীন সবজি। নারায়ণ চন্দ্র মন্ডল তিনি দীর্ঘ ৩০ বছরের উপরে সব ঋতুর সাথে তাল মিলিয়ে শীত,গ্রীষ্ম,বর্ষা সব ঋতুতে প্রধান জীবিকা নির্বাহের উৎস হিসেবে বেছে নিয়েছেন সবজির চাষাবাদ। এছাড়াও আবাদ কৃষি ধান ও রয়েছে। নারায়ণ চন্দ্র মন্ডল শুধু এবছর শালগম বিক্রি করে আয় করেছে ১ লক্ষ টাকার উপরে। শালগমের পাশাপাশি অন্যান্য সবজি বিক্রি করে প্রায় ২ লক্ষ টাকা আয় করেছে। একটা সবজির সাথে অন্য আরো সবজি একই বেডে বা জমিতে চাষ করাকে সাথী বা মিশ্র ফসল বলা হয়। ভালো ফলন হওয়ায় সবজি বিক্রি করে আরও লক্ষ টাকা আয় করার আশাবাদ রাখেন। নারায়ণ চন্দ্র মন্ডল বলেন আমাদের এই গ্রামে অধিকাংশ লোকই সবজি চাষাবাদ করেন। আমি ছাড়াও অন্যান্য চাষিরা কৃষি ও সবজি চাষ করে বেশ লাভবান হচ্ছেন। তিনি আরো বলেন যদি কৃষি অফিস থেকে আমাদের চাষাবাদ জমির জন্য আরও পরামর্শ, বীজ ও সার দিয়ে জমি পরিদর্শন করতেন তাহলে আমরা আরো উপকৃত হতাম।

বিজ্ঞাপন

এ বিষয়ে বিশারকান্দি ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ সাইফুল ইসলাম শান্ত বলেন বিশারকান্দি ইউনিয়ন বলতে গেলে বলতে হয় কৃষিবান্ধব ইউনিয়ন। আমার ইউনিয়নে ভাসমান সবজি সহ সিজনালি সবজি চাষাবাদ এর উপর নির্ভরশীল প্রায়ই চাষীরা। এবারের শীতের মৌসুমে আমি প্রত্যেক ওয়ার্ডে ঘুরে দেখেছি শীতকালীন সবজি চাষ করে চাষিরা বেশ লাভবান হচ্ছেন। এ বিষয়ে বানারীপাড়া উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা বলেন বানারীপাড়া উপজেলায় বিশারকান্দি ইউনিয়ন কৃষিক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি উল্লেখযোগ্য স্থান।যেমন ওইখানে ভাসমান সবজি থেকে শুরু করে সবকিছুর চাষাবাদ করা হয়। যাতায়াতের কারণে সব জায়গায় যাওয়া একটু অসম্ভব পর হয় । তারপর ও নৌকা ট্রলারের মাধ্যমে আমরা সব জায়গায় যাওয়ার চেষ্টা করি। আমরাও নারায়ণ চন্দ্র মন্ডলের মত কৃষক খুঁজছি।অতি দ্রুত তার মত কৃষকদের সাথে যোগাযোগ করে সরকারি সবরকম সুবিধা দেয়ার জন্য চেষ্টা করব।




ফেসবুকে আমরা







x

বানারীপাড়ায় শীতকালীন সবজি চাষে সফল  নারায়ণচন্দ্র মন্ডল

প্রকাশিত : ০৭:৫০:০৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২২
বিজ্ঞাপন
print news

নাহিদ সরদার, বানারীপাড়া প্রতিনিধি: বরিশালের বানারীপাড়া উপজেলার বিশারকান্দি ইউনিয়ন ৮নং ওয়ার্ডের ত্রিমুখী কদমবাড়ী সবজি চাষে সফল ভাবে সাফল্য লাভ করেছেন নারায়ণ চন্দ্র মন্ডল। তিনি এক একর জমিতে সবজি চাষ করেন।শীত কালীন সবজি চাষের মধ্যে রয়েছে শালগম, ফুলকপি ,বাঁধাকপি, মিষ্টি কুমড়া, গোল মরিচ, কাঁচা মরিচ, মিষ্টি আলু,সিম, টমেটো ,মূলা, পালং শাক,কুমাড় শাক,লাউ শাকসহ আরো অনেক শীত কালীন সবজি। নারায়ণ চন্দ্র মন্ডল তিনি দীর্ঘ ৩০ বছরের উপরে সব ঋতুর সাথে তাল মিলিয়ে শীত,গ্রীষ্ম,বর্ষা সব ঋতুতে প্রধান জীবিকা নির্বাহের উৎস হিসেবে বেছে নিয়েছেন সবজির চাষাবাদ। এছাড়াও আবাদ কৃষি ধান ও রয়েছে। নারায়ণ চন্দ্র মন্ডল শুধু এবছর শালগম বিক্রি করে আয় করেছে ১ লক্ষ টাকার উপরে। শালগমের পাশাপাশি অন্যান্য সবজি বিক্রি করে প্রায় ২ লক্ষ টাকা আয় করেছে। একটা সবজির সাথে অন্য আরো সবজি একই বেডে বা জমিতে চাষ করাকে সাথী বা মিশ্র ফসল বলা হয়। ভালো ফলন হওয়ায় সবজি বিক্রি করে আরও লক্ষ টাকা আয় করার আশাবাদ রাখেন। নারায়ণ চন্দ্র মন্ডল বলেন আমাদের এই গ্রামে অধিকাংশ লোকই সবজি চাষাবাদ করেন। আমি ছাড়াও অন্যান্য চাষিরা কৃষি ও সবজি চাষ করে বেশ লাভবান হচ্ছেন। তিনি আরো বলেন যদি কৃষি অফিস থেকে আমাদের চাষাবাদ জমির জন্য আরও পরামর্শ, বীজ ও সার দিয়ে জমি পরিদর্শন করতেন তাহলে আমরা আরো উপকৃত হতাম।

বিজ্ঞাপন

এ বিষয়ে বিশারকান্দি ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ সাইফুল ইসলাম শান্ত বলেন বিশারকান্দি ইউনিয়ন বলতে গেলে বলতে হয় কৃষিবান্ধব ইউনিয়ন। আমার ইউনিয়নে ভাসমান সবজি সহ সিজনালি সবজি চাষাবাদ এর উপর নির্ভরশীল প্রায়ই চাষীরা। এবারের শীতের মৌসুমে আমি প্রত্যেক ওয়ার্ডে ঘুরে দেখেছি শীতকালীন সবজি চাষ করে চাষিরা বেশ লাভবান হচ্ছেন। এ বিষয়ে বানারীপাড়া উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা বলেন বানারীপাড়া উপজেলায় বিশারকান্দি ইউনিয়ন কৃষিক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি উল্লেখযোগ্য স্থান।যেমন ওইখানে ভাসমান সবজি থেকে শুরু করে সবকিছুর চাষাবাদ করা হয়। যাতায়াতের কারণে সব জায়গায় যাওয়া একটু অসম্ভব পর হয় । তারপর ও নৌকা ট্রলারের মাধ্যমে আমরা সব জায়গায় যাওয়ার চেষ্টা করি। আমরাও নারায়ণ চন্দ্র মন্ডলের মত কৃষক খুঁজছি।অতি দ্রুত তার মত কৃষকদের সাথে যোগাযোগ করে সরকারি সবরকম সুবিধা দেয়ার জন্য চেষ্টা করব।